প্রতিবন্ধী কার্ড করার নিয়ম ২০২৪

জানুন প্রতিবন্ধী কার্ড কি, অনলাইনে প্রতিবন্ধী কার্ড করার নিয়ম, পাওয়ার যোগ্যতা এবং কার্ড করতে কি কি লাগে সেই সম্পর্কে। 

আমাদের সমাজে অনেক প্রতিবন্ধী মানুষ রয়েছে। যারা সকলে সুবর্ণ নাগরিক বা প্রতিবন্ধী কার্ড পাওয়ার যোগ্য। তবে এদের মধ্যে অনেকে আছেন যারা কিভাবে প্রতিবন্ধী কার্ড করতে হয় জানেন না।

বাংলাদেশ সরকার ২০০১ সাল থেকে দেশের সকল প্রতিবন্ধীদের বিশেষ সুযোগ সুবিধা প্রদান করার জন্য প্রতিবন্ধী কার্ড চালু করেন।

দেশের একজন সাধারণ নাগরিক যেমন তার জাতীয় পরিচয়পত্র বা আইডি কার্ড দিয়ে নানা ধরনের সুযোগ সুবিধা পেয়ে থাকে, ঠিক একই ভাবে একজন প্রতিবন্ধী তার কার্ডের মাধ্যমে নানা ধরনের সুযোগ সুবিধা পাবেন। 

যেমন বিভিন্ন ধরনের ভাতা, সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধী কোটা, স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় পড়াশোনার সুযোগ সুবিধা সহ আরো অন্যান্য সুবিধা।

বাংলাদেশ সরকার দেশের প্রতিবন্ধীদের ভাতা এবং কার্ড প্রদনের দ্বায়িত্ব প্রদান করেছে সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপর। আপনি যদি প্রতিবন্ধী কার্ড করতে চান তাহলে অনলাইনে আবেদন করুন।

প্রতিবন্ধী কত প্রকার কি কি

বর্তমানে দেশে অনেক ধরণের প্রতিবন্ধী রয়েছে। যারা বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে প্রতিবন্ধী ভাতা পায়। যেমন- দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, বাক প্রতিবন্ধী, শারীরিক প্রতিবন্ধী, বুদ্ধি প্রতিবন্ধী, শ্রবন প্রতিবন্ধী, বহুবিধ প্রতিবন্ধী।

সুবর্ণ নাগরিক বা প্রতিবন্ধী কার্ড কি

বাংলাদেশ সরকার ২০০১ সাল থেকে প্রতিবন্ধীদের জন্য বিশেষ একটি কার্ড প্রচলণ করেন। এই কার্ড শুধুমাত্র যারা শারিরীক ও মানুষিক প্রতিবন্ধী তাদের জন্য।

এই কার্ড ব্যবহার করার ফলে সাধারণ নাগরিকের মতো একজন প্রতিবন্ধীও বিশেষ সুযোগ সুবিধা পাবেন। যেমন বিভিন্ন ধরনের ভাতা, স্কুল কলেজে পড়াশোনা করার সুযোগ, চাকরির ক্ষেত্রে কোটা ইত্যাদি।

অনেকে এই কার্ডকে সুবর্ণ নাগরিক কার্ড বলে থাকেন। ৫ ধরনের ব্যাক্তিদের এই কার্ড ব্যবহার করার আওতায় আনা হয়েছে, যারা প্রতিবন্ধী হিসাবে গণ্য।

প্রতিবন্ধী কার্ড করতে কি কি লাগে ২০২৪

সুবর্ণ নাগরিক বা প্রতিবন্ধী কার্ড সবার জন্য প্রযোজ্য না। এই কার্ড করতে হলে একজন ব্যাক্তির মধ্যে অবশ্যই কিছু কাগজপত্র থাকতে হবে।

অনেকে জানতে চেয়েছেন প্রতিবন্ধী কার্ড করার জন্য কি কি কাগজপত্র প্রয়োজন নিচে উল্লেখ করা হয়েছে।

  • আবেদনকারীর অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্র বা জন্ম নিবন্ধন সনদ থাকতে হবে।
  • আবেদনকারীর মোবাইল নাম্বার ও ইমেইল নাম্বার থাকতে হবে।
  • আবেদনকারীকে অবশ্যই বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।
  • আবেদন ফর্মে নিদিষ্ট জায়গায় আবেদনকারীর স্বাক্ষর থাকতে হবে। 
  • প্রতিবন্ধী ব্যাক্তি বা প্রতিবন্ধীর পক্ষের অভিভাবক এটা ব্যবহার করতে পারবেন।
  • অনলাইন আবেদন ফরম আবেদনকারীর উপজেলা বা শহর সমাজ সেবা অফিসে জমা দিতে হবে।
  • সমাজ সেবা অফিসে থেকে নিদিষ্ট তারিখে ডাক্তারি পরিক্ষায় উপস্থিত হতে হবে।
  • ডাক্তারি পরিক্ষার সময় আবেদন ফরমটি অনলাইন থেকে প্রিন্ট করে সাথে আনতে হবে।
  • সমাজ সেবা অফিস থেকে এসএমএস (sms) পাওয়ার পরে কার্ডটি সংগ্রহ করতে হবে।

অনলাইনে প্রতিবন্ধী কার্ড করার নিয়ম

আমাদের দেশের অনেক ব্যাক্তি শারিরীক ও মানুষিক প্রতিবন্ধী হওয়ার সত্ত্বেও প্রতিবন্ধী কার্ড করার নিয়ম জানেন না। যার ফলে তারা কার্ড করতে নানা ধরনের হয়রানির শিকার হয়।

তাছাড়া বর্তমান সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সবকিছু অনলাইন করছে। তাই আপনারা যারা প্রতিবন্ধী কার্ডের জন্য আবেদন করবেন তাদের কে অনলাইনে আবেদন করতে হবে।

প্রতিবন্ধী কার্ডের অনলাইনে আবেদন করার জন্য সমাজ সেবা অধিদপ্তর এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেষ করে নিচের ধাপ গুলো অনুসরণ করুন।

  • প্রথমে আপনাকে সমাজ সেবা অধিদপ্তরের এই http://www.dis.gov.bd ওয়েবসাইট প্রবেশ করতে হবে।
  • এবার আপনার সামনে একটি অনলাইন অনলাইন ফরম আসবে সেটা সঠিক ভাবে পূরণ করুন।
  • আবেদন ফরমটি ৪টি অংশ বিভক্ত থাকবে। যেমন সেকশন-১, সেকশন-২, সেকশন-৩, সেকশন-৪ পূ্রণ করে ফরমটি প্রিন্ট করে নিবেন।
  • উপজেলা সমাজ সেবা অফিস থেকে মেডিকেল টেস্ট করার জন্য আপনাকে ডাকা হবে সাথে করে প্রিন্ট করা ফরমটি নিয়ে যাবেন।
  • ডাক্তার টেস্ট করার পরে আপনি শারিরীক বা মানুষিক প্রতিবন্ধী হলে আপনাকে প্রতিবন্ধী কার্ড দেওয়া বিবেচনা করা হবে।
  • সমাজ সেবা অফিস থেকে আপনাকে এসএমএস (sms) এর মাধ্যমে প্রতিবন্ধী কার্ড সম্পর্কে জানানো হবে।

কিভাবে প্রতিবন্ধী কার্ড সংগ্রহ করবেন । প্রতিবন্ধী কার্ড ডাউনলোড

সমাজ সেবা অফিস থেকে এসএমএস পাওয়ার পরে সমাজ সেবা অধিদপ্তর এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট http://www.dis.gov.bd এ প্রবেশ করে আপনার ইউজার আইডি এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে প্রতিবন্ধী কার্ডটি সংগ্রহ বা প্রতিবন্ধী কার্ড ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

ভাতা ও অনুদান সম্পর্কে আরো তথ্য পড়ুন 

শেষ কথা

আজকে আমরা জানলাম অনলাইনে প্রতিবন্ধী কার্ড করার নিয়ম, কার্ড করতে কি কি কাগজপত্র লাগে এবং কার্ড সংগ্রহ করার উপায় সম্পর্কে। এই  আর্টিকেল সম্পর্কে কোনো প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট বক্সে লিখে জানাবেন।

Similar Posts

2 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *